logo
news image

ইসলামে কুরআন-হাদিসের জ্ঞান প্রচারের ফজিলত

রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বিশ্ব মানবতার জন্য আদর্শ শিক্ষক হিসেবে এসেছেন। এ জন্যই তিনি বলেছেন, ‘আনা বুইসতু মুয়াল্লিমান’ আমি শিক্ষরুপে প্রেরিত হয়েছি। যার ফলে আরবের অন্ধকার সমাজে তিনি আলোর মশাল জ্বালাতে সক্ষম হয়েছিলেন। দূর করেছিলেন অন্যায়-অনাচার-নির্যাতনসহ সব ধরনের খারাপ কাজ। বর্তমান সমাজ থেকেও অন্যায়-অত্যাচার দূর করতে কুরআন-হাদিসের জ্ঞানের বিকল্প নেই। ইসলামে কুরআন-হাদিসের জ্ঞান প্রচারের ফজিলত অত্যাধিক। এ সম্পর্কিত দু’টি হাদিস তুলে ধরা হলো-

হজরত ইবনে মাসউদ হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে বলতে শুনেছি, তিনি বলেছেন, ‘আল্লাহ সেই ব্যক্তির শ্রীবৃদ্ধি করেন যে, ব্যক্তি আমাদের নিকট কিছু শ্রবণ করে তা অন্যের নিকট ঠিক সেভাবেই পৌঁছে  দেয়, যেভাবে সে শ্রবণ করেছিল। কেননা যাদের কাছে (হাদিস) পৌঁছানো হয় তাদের কেউ কেউ এমনও আছে, যে ঐ শ্রবণকারী অপেক্ষা অধিক স্মৃতিমান ও সমঝদার। (তিরমিজি, আবু দাউদ, ইবনে হিব্বান)

হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহু আনহু হতে বর্ণিত, তিনি বলেন, আল্লাহর রাসুল বলেছেন, মুমিনের মৃত্যুর পর তার আমল ও পুণ্যকর্মসমূহ হতে নিশ্চিতভাবে যা এসে তার সহিত মিলিত হয় তা হলো ‘ইলম’ যা সে শিক্ষা করে প্রচার করেছে অথবা নেক সন্তান যাকে রেখে সে মারা গেছে, অথবা কুরআন শরীফ যা সে মীরাসরুপে ছেড়ে গেছে অথবা মসজিদ যা সে  নিজে নির্মাণ করে গেছে, অথবা মুসাফিরখানা যা সে মুসাফিরদের সুবিধার্থে নির্মাণ করে গেছে, অথবা সাদাকাহ যা সে নিজের মাল থেকে তার সুস্থ ও জীবিতাবস্থায় বের (দান) করে গেছে। এ সব কর্মের সাওয়াব তার মৃত্যুর পরও তার সঙ্গে এসে মিলিত হবে।’ (ইবনে মাজাহ, বয়হাকি)
হে আল্লাহ! আপনি হাদিসের জ্ঞান অনুযায়ী আমল করার তাওফিক দান করুন। সঠিক কথা, সঠিক জ্ঞান অন্যের মাঝে প্রচার করার তাওফিক দান করুন। দুনিয়া আখিরতের কল্যাণ দান করুন। আমিন।

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top