logo
news image

খুদে শিক্ষার্থীদের ভোট উৎসব

আনোয়ারা খাতুন শেফালী, লালপুর (নাটোর)
নাটোরের লালপুরে ১১২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের স্টুডেন্টস কাউন্সিল নির্বাচনে প্রায় ১৭ হাজার খুদে শিক্ষার্থী ভোট উৎসবে মেতে উঠে।
বৃহস্পতিবার (২ জুন ২০২২) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের শিশুকাল থেকে গণতন্ত্র চর্চা ও মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধাশীল করতে বিদ্যালয়গুলোতে স্টুডেন্টস কাউন্সিলের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়।
সরেজমিন বরমহাটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, শিক্ষার্থীদের মধ্যে ভোট উৎসব আনন্দ বিরাজ করছে। নিজেরা নেতা নির্বাচনে ভোট প্রদান, ভোট গ্রহণসহ নির্বাচনী সব কার্যক্রমে নিজেদের যোগ্যতা প্রমান করছে।
এই বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নির্বাচনে ১৫জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অংশ নেয়। বিদ্যালয়ে মোট ১১২ জন ভোটারের মধ্যে ৯৫ জন ভোটাধিকার প্রয়োগ করে। নির্বাচনে ৫৯ ভোট পেয়ে ক্রিকেট ব্যাট প্রতীকে ১ম বিজয়ী হয় পঞ্চম শ্রেণির রাফিজ। এছাড়া ৫৮ ভোট পেয়ে ২য় হয় চতুর্থ শ্রেণির রাইহান, ৫৭ ভোট পেয়ে ৩য় হয় তৃতীয় শ্রেণির জুনাইদ, ৫৩ ভোট পেয়ে ৪র্থ হয় চতুর্থ শ্রেণির জুথি, ৫২ ভোট পেয়ে ৫ম হয় পঞ্চম শ্রেণির জান্নাতুন, ৪৬ ভোট পেয়ে ৬ষ্ঠ হয় চতুর্থ শ্রেণির শামীম এবং ৪৫ ভোট পেয়ে ৭ম হয় চতুর্থ শ্রেণির পূর্ণিমা।
নির্বাচিত শিক্ষার্থী রাফিজ জানায়, ভোটে জিতে খুব আনন্দিত। তফসিল ঘোষনার পর প্রর্থী ঘোষনা করে ব্যস্ত সময় কাটিয়েছে। তাকে বিজয়ী করায় শিক্ষার্থীদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে।
উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, তৃতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা ভোটের মাধ্যমে এক বছরের জন্য তাদের নেতা নির্বাচন করতে স্টুডেন্টস কাউন্সিলের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলার ১১২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রায় ১৭ হাজার শিক্ষার্থী ভোটার এতে অংশ নেয়। সকাল ৯টা থেকে বেলা ১টা পর্যন্ত ভোট নেওয়ার পর ফল ঘোষণা করা হয়।  প্রতিটি বিদ্যালয়ের তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম প্রতি শ্রেণিতে দুইজন ও বিদ্যালয়ের একজন মোট মোট সাতজন প্রতিনিধি নির্বাচিত হয়। এতে ১১২টি বিদ্যালয়ে ৭৮৪টি পদের বিপরীতে ১ হাজার ৪৬৪ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে।
লালপুর উপজেলা প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মোমিন শাহীন বলেন,  পরিবেশ সংরক্ষণ, পুস্ক ও শিখন সামগ্রী, স্বাস্থ্য, ক্রীড়া ও সংস্কৃতি, পানি সম্পদ, বৃক্ষ রোপণ ও বাগান তৈরি ইত্যাদি, অভ্যর্থনা ও আপ্যায়ন এ সাত পদে ভোট হয়। পুরো বিদ্যালয়ের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভোট প্রাপ্তকে কাউন্সিলের প্রধান প্রতিনিধি করা হয়।
উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা রেহানা পারভিন বলেন, তাঁরা এ বিষয়ে ১৪ থেকে ১৬ মে প্রধান শিক্ষক ও এসএমসির (স্কুল ম্যানেজিং কমিটি) সভাপতিদের সংশ্লিষ্ট বিষয়ে অবহিত করেন। এ প্রেক্ষিতে গত ১৭ থেকে ২১ মে বিদ্যালয় পর্যায়ে এসএমসি, শিক্ষক, অভিভাবক ও ছাত্রছাত্রী সমন্বয়ে অবহিতকরণ সভা, নির্বাচন কমিশনার ২২ মে নিয়োগ ও ২৩ মে ভোটার তালিকা প্রকাশ ও নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়।
ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, গত ২৪ মে মনোনয়ন আহ্বান, ২৮ মে মনোনয়ন জমা, ২৯ মে মনোনয়ন বাছাই ও বৈধ প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ, ৩০ মে মনোনয়ন প্রত্যাহার ও চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হয়। বৃহস্পতিবার ২ জুন সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ শেষে ফলাফল ঘোষণা করা হয়।
লালপুর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আলেয়া ফেরদৌসী বলেন, শিশুদের গণতন্ত্রের চর্চার পাশাপাশি অন্যের মতামতের প্রতি সহিষ্ণু, শ্রদ্ধা প্রদর্শন, শিক্ষকদের সহায়তা, ছাত্র ভর্তি ও ঝরে পড়া রোধ, অভিভাবকদের সম্পৃক্ত করা, বিদ্যালয়ের পরিবেশ ও উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে স্টুডেন্টস কাউন্সিল নির্বাচন হচ্ছে। শিক্ষার্থীরা নিজেরাই তাদের নেতা নির্বাচন করেছে।
উল্লেখ্য, সারা দেশের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের শিশুকাল থেকে গণতন্ত্র চর্চা ও মূল্যবোধের প্রতি শ্রদ্ধাশীল করতে ২০১০ সালে সর্বপ্রথম স্টুডেন্টস কাউন্সিল নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। যা স্থানীয় জনসাধারণ, ছাত্রছাত্রী ও শিক্ষকদের মাঝে বিপুল আগ্রহ ও উৎসাহ-উদ্দীপনার সৃষ্ট করে। এরপর ২০১১ সালে ও সর্বশেষ ২০১২ সালে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

সাম্প্রতিক মন্তব্য