logo
news image

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের কয়েকটি ধারা নিয়ে উদ্বেগ সম্পাদক পরিষদের

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, সাইবার অপরাধ নিয়ন্ত্রণ করতেই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন। সংবাদপত্রের স্বাধীনতা বা বাক স্বাধীনতা বন্ধ করতে এই আইন প্রণয়ন করা হচ্ছে না। প্রস্তাবিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের সুনিদ্দিষ্ট ছয়টি ধারা নিয়ে সংবাদপত্রের সম্পাদকদের সংগঠন সম্পাদক পরিষদের উদ্বেগ প্রকাশের পর আইনমন্ত্রী সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। 
 
এর আগে বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে আইন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী আনিসুল হক, ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সঙ্গে বৈঠক করেন সম্পাদক পরিষদ নেতৃবৃন্দ। 
  
বৈঠকে ডিজটাল নিরাপত্তা আইনের ২১, ২৫, ২৮, ৩১, ৩২ ও ৪৩ ধারা নিয়ে উদ্বেগ জানায় সম্পাদক পরিষদ। বৈঠক শেষে মাহফুজ আনাম বলেন, এসব ধারা বাক স্বাধীনতা ও স্বাধীন সাংবাদিকতার পরিপন্থী। স্বাধীন সাংবাদিকতা নিয়ে আমরা বাংলাদেশে যে গর্ববোধ করি, এসব ধারা গভীরভাবে তা ব্যাহত করবে। তিনি বলেন, সাইবার অপরাধ প্রতিহত করবে এমন একটি আইন আমাদের দেশে সত্যিই প্রয়োজন। সেই আইনটা হোক, যে আইনটা তার উদ্দেশ্য পূরণ করবে। স্বাধীন সাংবাদিকতাকে কোনোভাবেই ব্যাহত করবে না, এটাই আমাদের বিশ্বাস। 

বৈঠকে পরিষদের সেক্রেটারি জেনারেল ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনাম, প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান, নিউজ টুডে সম্পাদক রিয়াজউদ্দিন আহমেদ, কালের কন্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন, ফিনানশিয়াল এক্সপ্রেস সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন, নিউ এজ সম্পাদক নুরুল কবির, যুগান্তরের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সাইফুল আলম, বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নইম নিজাম, সংবাদের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক খন্দকার মুনীরুজ্জামান, নয়া দিগন্ত সম্পাদক আলমগীর মহিউদ্দিন, ইনকিলাব সম্পাদক এএমএম বাহাউদ্দিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। 

আইনমন্ত্রী বলেন, সম্পাদক পরিষদ যে আপত্তিগুলো তুলে ধরেছে সেগুলো অনেকাংশে যৌক্তিক। তবে আইনটি এখন সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে আছে। আগামী ২২ এপ্রিল কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হবে। ওই সভায় সম্পাদক পরিষদকে আমন্ত্রণ করার প্রস্তাব রাখা হবে। 
 

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top