logo
news image

অনিশ্চিত ফরাসি প্রেসিডেন্ট নির্বাচন ২০২২

কাজী এনায়েত উল্লাহ, প্যারিস।।
ফরাসি পঞ্চম প্রজাতন্ত্রের ১১তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফলাফল কী হবে, তা নিয়ে নানা রকম জল্পনা-কল্পনা চলছে।অনেকেরই ধারণা যে বর্তমান প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাখ্রোঁই শেষ পর্যন্ত জয়ী হবেন।কিন্তু সাম্প্রতিক জনমত যাচাইয়ের পরিপ্রেক্ষিতে তাঁর সম্ভাবনা নিতান্তই কম।
প্রেসিডেন্ট ম্যাখ্রোঁমূলত ক্ষমতায় এসেছিলেন একটা বিশেষ পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে।সাবেক প্রেসিডেন্ট ফ্রঁসোয়া হলেন্ডের দুর্বল শাসনামল এবং তিনি তাঁর সময় উত্তীর্ণ হওয়ার পর আবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশগ্রহণের ব্যাপারে অনিহা প্রকাশ করায় ফরাসি ইতিহাসের সবচেয়ে তরুণএবংসাবেক অর্থমন্ত্রী এমানুয়েল ম্যাখ্রোঁ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার সুযোগ গ্রহণ করেন।
বস্তুত ম্যাখ্রোঁ একজন টেকনোক্র্যাটএবং বিশ্বখ্যাত রথচাইল্ড অর্থনৈতিক গ্রুপের একজন কর্মকর্তা হিসেবেদায়িত্ব পালন করছিলেন। ২০১৭ সালে ক্ষমতায় আসার পর তাঁকে প্রথমেই ইয়েলো জ্যাকেট আন্দোলন মোকাবেলা করতে হয়। ফরাসিদের এক বিরাট অংশ এই আন্দোলনের মাধ্যমে ম্যাখ্রোঁর নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি মোতাবেক বেশ কয়েকটি মৌলিক রিফর্মের বিরোধিতায় ফ্রান্সজুড়ে এই গণ-আন্দোলন শুরু করে, যা পরবর্তী সময়ে অনেকটা হিংসাত্মক রূপ ধারণ করে।
কট্টর বামপন্থী রাজনৈতিক দলগুলোর এই আন্দোলন শেষ পর্যন্ত সরকারকে বাধ্যকরে তাদের কার্যক্রম থেকে সরে আসতে। তারপর করোনা ক্রাইসিস, দুই বছরের অধিক সময় সরকারকে নানা রকম সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে, যা সব ক্ষেত্রেই জনপ্রিয় ছিলনা। বিশ্বব্যাপী এই মহামারি সমগ্র মানবসমাজকে তার অস্তিত্বের ব্যাপারে দ্বিধাবিভক্ত করেছেভ্যাকসিনের পক্ষে বা বিপক্ষে। সেই সাথেঅর্থনৈতিক অচলাবস্থাতো আছেই। তারপরও ফরাসিদের মধ্যে দেশ পরিচালনার অন্যকোনো যোগ্য ব্যক্তিত্ব না থাকায় ম্যাখ্রোঁকেই বেছে নিয়েছিল পরবর্তী ৫ বছরের জন্য;অন্তত জনমত যাচাইয়ে তা-ই মনে হচ্ছিল।
বামপন্থী দলগুলোর শোচনীয় অবস্থা এবংগ্রহণযোগ্যকোনো নেতৃত্ব সৃষ্টিতে ব্যর্থতার কারণে নির্বাচনে তাদের অবস্থান খুবই দুর্বল হয়ে পড়ে।ফরাসি জনগণের এক বিরাট অংশ বহিরাগত, এ কারণেই আজ ফ্রান্সের এই অর্থনৈতিক বিপর্যয়,কট্টর ডানপন্থী দলগুলো কথাটা বোঝাতে সক্ষম হওয়ায় তাদের অবস্থান আজ অনেকটা শক্তিশালী। বিশষত দুই নেতৃত্ব যথাক্রমে মারিন লোপেন আর এরিক জেমুর আজ জনপ্রিয়তায় বেশ শক্তিশালী অবস্থানে আছেন। কিন্তু রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ সমস্ত রাজনৈতিক পর্যালোচনাকে ওলোটপালট করে দিয়েছে।
প্রেসিডেন্ট ম্যাখ্রোঁও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের একচেটিয়া ইউক্রেনকে সমর্থনের ব্যাপারটা তারা গ্রহণ করতে পারেনি। পশ্চিমা বিশ্ব, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও ন্যাটোর ইউক্রেনকে শর্তহীন সামরিক ও অর্থনৈতিক সহযোগিতার বিপরীতে রযেছে ফরাসি জনমত। যদিও ফরাসি মিডিয়াগুলো সর্বক্ষণ রাশিয়ার বিরুদ্ধে প্রচারণায় ব্যস্ত এবং ইউক্রেনকে রাশিয়ার আগ্রাসনেরশিকার বলে অভিহিত করছে।প্রকৃত কারণ বা বাস্তবতাকে তারা গুরুত্ব দেয় না।
স্বাধীনচেতা ফরাসিরা ১৯৬৫ সালে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট জেনারেল দ্যু গলের নেতৃত্বে মার্কিন সংগঠন ন্যাটো থেকে বেরিয়ে এসে এক স্বাধীন নিউক্লিয়ার ডিসিশনের কার্যক্রম শুরু করে এবং সামরিক ক্ষেত্রে আত্মনির্ভরশীল নীতি অবলম্বন করে, কিন্তু প্রেসিডেন্ট নিকোলা সারকোজি ২০০৮ সালে এক অজানা কারণে পুনরায় ন্যাটোতে ফ্রান্সকে যোগদানের সিদ্ধান্ত নেন। এরই এক নীরব প্রতিক্রিয়া আজ দৃশ্যমান, যেখানে প্রেসিডেন্টম্যাখ্রোঁ জনমত যাচাইয়ে ৩৫% জনগণের আস্থার পাত্র ছিলেন,অথচ রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের ৪২ দিন পর তাঁর জনপ্রিয়তা নেমে এসেছে ২৬.৫০ ভাগে।অন্যদিকে কট্টর ডানপন্থী মারিনলোপেনের জনপ্রিয়তা বেড়ে হয়েছে ১৫% থেকে ২৫%।
উল্লেখ্য, ২০১৭ সালে মারিন লোপেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিনের কাছ থেকে নির্বাচনী খরচ বাবদ লোন নিয়েছিলেন ৩০ মিলিয়ন ইউরো।এবারের নির্বাচনী প্রচারণায়ও তিনি রাশিয়ার প্রতি ইউরোপের নানা রকমনিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে। ফরাসি গণতন্ত্রের বিশেষত্ব হচ্ছে, নির্বাচনগুলো পরিচালিত হয় দুই রাউন্ডে।প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রার্থীকে তাঁর গ্রহণযোগ্যতা প্রমাণ করতে হলে অবশ্যই ৫০০ জন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধির সাক্ষরদেয়া অনুমোদনপত্র জমা দিতে হবে।এটা অবশ্য মোটেই সহজ ব্যাপার নয়। তারপর একটা নির্দিষ্ট নিয়মের ভিত্তিতে নির্বাচনী প্রচারণাও খরচ করতে হবে।নির্বাচনী খরচ সর্তসাপেক্ষে সরকার পরিশোধ করে, যাতে টাকার জোরে কেউ নির্বাচনী প্রচারণাচালাতে না পারে।
শতকরা ৫০ ভাগের অধিক ভোটপ্রাপ্ত প্রার্থীকে সরাসরি জয়ী বলে ঘোষণা করা হয়।অন্যদিকে তারকম হলে ১৫দিন পর দ্বিতীয় রাউন্ড মোকাবেলা করতে হয়।এক্ষেত্রে সাধারণত প্রথম ও দ্বিতীয় স্থান অধিকারীদের সঙ্গে অন্য দলগুলো আলোচনা করে কোয়ালিশন করে ক্ষমতায় আসার জন্য।
এবারের নির্বাচনে ১২ জন প্রার্থী, তবে তাঁদের ডান বা বামপন্থী হিসেবে বিবেচনা করলে দেখা যায়, ৪৫% ডান আর ২৮.৫০% বামপন্থী প্রতিদ্বন্দ্বী। অন্যদিকে মধ্যপন্থীম্যাখ্রোঁ পেতে পারেন ২৬.৫০%।জনমত যাচাইয়ে এটাই হচ্ছে আজকের প্রতিচ্ছবি।উল্লেখ করাযায় যে ১৫ বছর ফ্রান্স শাসন করা প্রেসিডেন্ট মিতেরাঁর এবং ৫ বছর শাসন করা প্রেসিডেন্ট হলেন্ডের সোশালিস্ট পার্টির অবস্থা খুবই করুণ!অন্যদিকে ঐতিহাসিক দ্যু গল, সিরাক আর সারকোজির ক্লাসিক ডান দলেরও একই অবস্থা। কথা হচ্ছে, দিতীয় রাউন্ডের কোয়ালিশন আলোচনায় বাম ওডান কোন পক্ষের শক্তি কী হতে পারে? বিষয়টাআরও নির্ভর করছে কত ভাগ ভোটার এখনো সিদ্ধান্তহীনতায় আছেনএবং কতভাগ ভোটার তাঁদের নাগরিক দায়িত্ব পালন করবেননা।
এবারের নির্বাচন তাই অনেকটাই অনিশ্চিত। কোনো কিছুই বলা যাবেনা।যেমন প্রখ্যাত ফরাসি ব্যক্তিত্ব জ্যাক আতালি বলেছেন, “এবারের নির্বাচনে প্রথমবারের মতো একজন মহিলা প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হবেন, যিনি কট্টর বর্ণবাদী দলের একজন ঐতিহাসিক নেত্রী।” যদি তা-ই হয়,তাহলে আশ্চর্য হওয়ার কিছু থাকবেনা।
তবে যদিবাংলাদেশ বা ফ্রান্সে বসবাসরত বাংলাদেশিদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট ব্যাপারে বলতে হয়, তাহলে ম্যাখ্রোঁই উপযুক্ত ব্যক্তি,যাঁর সঙ্গে আমাদের সরকার ও ব্যবসায়ীদের একটা অব্যাহত সম্পর্ক রয়েছে। আর রাষ্ট্র পরিচালনায়ও ওনার অভিজ্ঞতা ওপরিপক্কতা এখন স্বীকৃত।

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top