logo
news image

ঈশ্বরদীতে আবুল কালাম আজাদ মিন্টুর সংবাদ সম্মেলন

ঈশ্বরদী (পাবনা) সংবাদদাতাঃ
আমরা সবসময় বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ সাংবাদিকদের নিকট আশা করি। বিশেষ উদ্দেশ্যে ফেসবুকের উপর নির্ভর করে আমাকে জড়িয়ে যে মিথ্যা বানোয়াট সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে তা শুধূ নিন্দনীয় নয়, অপসাংবাদিকতার বহিঃপ্রকাশ মাত্র। রাজনৈতিক নোংড়া প্রতিহিংসার শিকার হয়ে সম্প্রতি কয়েকটি পত্রিকায় প্রকাশিত মিথ্যা সংবাদের প্রতিবাদ জানাতে আমি আজ আপনাদের সামনে উপস্থিত হয়েছি। রবিবার রাতে ঈশ্বরদী প্রেসক্লাবে জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র আবুল কালাম আজাদ মিন্টু একথা বলেছেন।


এসময় মিন্টু দৈনিক কালের কন্ঠের অনলাইনে এবং দৈনিক সমকাল, দেশ রূপান্তর ও স্থানীয় সাপ্তাহিক জনদৃষ্টি পত্রিকায় প্রকাশিত  ‘বিএনপি নেতাদের নিয়ে শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টায় দন্ডিতদের স্মরণ করে আওয়ামী লীগ নেতার বৃক্ষরোপণ শীর্ষক প্রকাশিত মিথ্যা-বানোয়াট সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান।




সাবেক মেয়র বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা দেশরত্ন জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা “বাংলাদেশ সবুজায়ন” করার লক্ষ্যে মুজিব শতবর্ষে সারাদেশে গাছ লাগানোর আহব্বান জানিয়েছেন। তারই অংশ হিসেবে ঈশ্বরদী পূর্বটেংরী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে গত ১৯ আগস্ট স্কুলের প্রধান শিক্ষক জোমসেদ আলী স্কুলে গাছ লাগানোর জন্য আমাকে ফোন দেন। পরবর্তিতে সরোয়ারুজ্জামান মনা বিশ্বাস আমাকে গাছ লাগানোর সময় উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ করেন। আমি এই স্কুলের সভাপতি হিসেবে স্কুল প্রাঙ্গণে গাছ লাগানোর আমন্ত্রণ পেয়ে ২০ আগষ্ট উপস্থিত হই।

একই স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য সাবেক সরকারি কর্মচারী মনা বিশ্বাস, স্কুলের প্রধান শিক্ষক, সহকারী শিক্ষকবৃন্দ ও স্কুলের নিকটতম প্রতিবেশী রফিকুল ইসলাম নয়ন এসময় উপস্থিত ছিলেন। গাছ লাগানোর মতো ভালো কাজের বিষয়টিকে কেন্দ্র করে আমাকে রাজনৈতিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করতেই স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠী বিভিন্ন অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। এনিয়ে রাজনীতি করার কোন সুযোগ নেই। এটি কোন দলীয় কার্যক্রমও ছিলো না। দন্ডপ্রাপ্ত আসামীদের কারামুক্তি কামনা বা স্মরণ করে গাছ লাগানোর ঘটনা কখনও শুনিনি এবং ওইদিনও সে ধরণের ঘটনা ঘটেনি। অথচ পত্রিকায় আমার বিরুদ্ধে শেখ হাসিনার গাড়ি বহরে হামলা মামলার ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত আসামীদের স্মরণে গাছ লাগানো হয়েছে বলে উপস্থাপন করা হয়েছে। তা শুধু মিথ্যা ও বানোয়াটই নয় অপসাংবাদিকতার একটি ঘৃণ্যতম অধ্যায়।

তিনি বলেন, আমি শেখ হাসিনার ট্রেনবহরে হামলা মামলার একজন অন্যতম স্বাক্ষী। আমাদের প্রত্যক্ষ স্বাক্ষ্য ও প্রচেষ্টার কারণে আজ ট্রেনে হামলাকরীরা জেলে সাজাভোগ করছে।

পত্রিকায় আমাকে উদ্ধৃত করে আমার যে বক্তব্য প্রকাশ হয়েছে, আসলে আমার কোন বক্তব্য নেয়া হয়নি। এটিও সম্পূর্ণ মিথ্যাচার।

এব্যাপারে পাবনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ¦ নূরুজ্জামান বিশ্বাস বলেন, ফেসবুকের উপর ভিত্তি করে খবর প্রকাশ করা নিন্দনীয়। এসব কর্মকান্ড নোংড়ামি ছাড়া আর কিছুই নয়।

এসময় উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম খান, সলিমপুরের চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ বাবলু মালিথা, সাহাপুরের চেয়ারম্যান মতলেবুর রহমান মিনহাজ, দাশুড়িয়ার চেযারম্যান বকুল সরদার, পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও সাবেক ভিপি ইমরুল কায়েস দারা, সাংগাঠনিক সম্পাদক আজিজুর রহমান চঞ্চল, ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলবার হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহব্বায়ক মাসুদ রানাসহ উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের বিপুল সংখ্যক নেতা-কর্মী এসময় উপস্থিত ছিলেন।

সাম্প্রতিক মন্তব্য