logo
news image

ফুটবলার নার্গিসের পাশে ম্যক্স গ্রুপ

ইমাম হাসান মুক্তি, প্রতিনিধি, লালপুর (নাটোর)
অভাবের সংসারে ফুটবল খেলাই ছেড়ে দেওয়ার উপক্রম। তখনই নারী ফুটবল লিগে এফসি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার হয়ে খেলা এই দরিদ্র ফুটবলারের পাশে দাঁড়ালেন ম্যাক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার গোলাম মোহাম্মদ আলমগীর। ফুটবলার নার্গিসকে প্রতিমাসে অর্থিক অনুদানের বিষয়টি নিশ্চিতয়তা দেন।
বাংলাদেশ নারী ফুটবল লীগ ২০২১-এর কমলাপুর স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত শেষ ম্যাচে (১৯ জুলাই ২০২১) আতাউর রহমান ভুইয়া কলেজ দলের বিপক্ষে এফসি ব্রাক্ষণবাড়িয়া দলের তৃতীয় স্থান অর্জনে এই ডিফেন্ডারের অবদান ছিল চোখে পড়ার মতো। অদম্য মনোবলের নার্গিস খাতুনের পেশাদার ফুটবলার হওয়ার প্রথম ধাপ।
সোমবার (২ আগস্ট ২০২১) নার্গিস খাতুন বলেন, ম্যাক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার গোলাম মোহাম্মদ আলমগীরের প্রতি চিরকৃতজ্ঞ। তিনি মাসে ৫ হাজার টাকা অনুদানের আশ্বাস দিয়েছেন। নতুন উদ্যোমে খেলার অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন।
দিনমজুর কৃষক পরিবারের সন্তান নার্গিস খাতুন। বাবা-মা নিজে থেকেছেন আধা-পাকা ঘরের বারান্দায়। মেয়েকে কিনে দিয়েছেন জার্সি-ফুটবল-বুট। বাংলাদেশ নারী জাতীয় দলে খেলার স্বপ্ন তার।
এফসি ব্রাহ্মণবাড়িয়া ক্লাবের প্রধান কর্মকর্তা শাহাদত হোসেন জুবায়ের বলেন, নার্গিস খাতুন একজন সম্ভাবনাময়ী ফুটবল তারকা। আর্থিকভাবে স্বচ্ছলতা আসলে সে একদিন অনেক ভাল খেলবে।
নাটোরের লালপুরের বালিতিতা ইসলামপুর গ্রামে ২০০৪ সালের ১০ ডিসেম্বর জন্মগ্রহণ করেন নার্গিস খাতুন। পিতা মো. মুজদার রহমান ও মাতা মোছা. রুবি বেগম। তিন বোনের মধ্যে দ্বিতীয় নার্গিস খাতুন।
তিনি সপ্তম শ্রেণিতে পড়া অবস্থায় ২০১৬ সালে বাংলাদেশ ক্রিড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (বিকেএসপি)-এ ভর্তির সুযোগ পান। বিকেএসপির অনূর্ধ্ব ১৫/১৭ বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করেন। জামিলপুর কাচারিপাড়া একাদশে ক্যাপ্টেন হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ২০১৭ সালে বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ অনূর্ধ্ব ১৭-তে জাতীয় দলে খেলার সুযোগ পান। ২০২১ সালে ৩ মার্চ বীচ ফুটবল টুর্নমেন্টে খেলেন।
ঢাকার এফসি ব্রাক্ষণবাড়িয়া ক্লাবের অনূর্ধ্ব ১৫/১৭ নারী দলের ফুটবলার নার্গিস খাতুন একজন স্টপার।

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top