logo
news image

সম্রাট আকবর ছিলেন ইসলাম ধর্মের ঘোড় বিরোধী

সম্রাট আকবর ছিলেন ইসলাম ধর্মের ঘোড় বিরোধী।তার শাসনামলে মোসলমানদের দুরবস্হার কোন সীমা ছিল না। সম্রাট আকবর ইসলাম ধর্মের পরিবর্তে নতুন এক ধর্মের প্রবর্তন করেন।ইহা ছিল স্পষ্টতই এক কুফরী ধর্ম অথচ এই নতুন ধর্মের নাম দেওয়া হলো ”দ্বীন-ই-ইলাহী”দীন-ই-ইলাহির মূলমন্ত্র ছিল ”লা ইলাহা ইল্লালাহু আকবারু খলিলুল্লাহì”যাহারা নুতন ধর্মে দাখিল হত তাদেরকে এরূপ শপথ বাক্য উচ্চারন করতে হতো- ”আমি অমুকের পুত্র অমুক এতদিন বাপ দাদাদের

অনুকরনে ইসলাম ধর্মের উপর প্রতিষ্ঠত ছিলাম, এখন স্বেছ্ছায় ও সগ্গানে

পূর্ব ধর্ম পরিত্যাগ করে ‘দীন-ই-ইলাহি’ গ্রহন করিতেছি এবং এই ধর্মের জন্য জীবন,সম্পদ ও সম্মান বিসর্জন দিতে প্রস্তুত আছি।”

দীন-ই-ইলাহির লোকেরা চিঠিপত্রের শিরোনামে ‘আল্লাহ আকবর’

লিখিত এবং পরস্পরের সাক্ষাতের সময় সালামের পরিবর্তে একজন বলত


‘আল্লাহ আকবর” এবং অপরজন এর জবাবে বলত ‘জাল্লাজালালুহু’।
এই নতুন ধর্মের প্রধান উপাদান ছিল সূর্যের উপাসনা করা।বাদশাহ প্রভাতে,দ্বিপ্রহরে,সন্ধায় ও অর্ধরাত্রে বাধ্যতামূলকভাবে সূর্য পূজা করিতেন।তিনি তিলক লাগাতেন ও পৈতা পরতেন।সূর্যদয়ের সময় ও মধ্যরাত্রিতে নহবত ও নাকাড়া বাজান হতো।এই নতুন ধর্মে সূর্যের নাম উচ্চারনকালে ‘জাল্লাত কুদরাতুহু’ বলা হতো।বাদশাহ বিশ্বাস করতেন যে ,সূর্য বাদশাহ গনের অভিবাবক ও হিতাকাঙ্খী।তিনি তাই হিন্দুদের কাছ থেকে সূর্যকে বশীভূত করার মন্ত্র শিখেছিলেন।মাঝরাত্রে ও ভোরে তিনি এই মন্ত্র পাঠ করতেন।শিবরাতে তিনি যোগীদের আসরে সমস্ত রাত্রি বসে থাকতেন এবং বিশ্বাস করতেন যে ,ইহাতে আয়ু বৃদ্ধী পায়।

‘ব্রাক্ষ্মদান’ নামক জনৈক ব্রাক্ষ্মনকে বাদশাহ রাজকবি নিযুক্ত করেন। ইতিহাসে তিনিই ”বিরবল” নামে পরিচিত ।তারই পরামর্শে ‘দেবী’ নামক জনৈক হিন্দু দর্শনিক বাদশাহর সহিত মেলামেশা করার সুযোগ পায়।রাত্রিকালে বাদশাহর অন্দরমহলেও এই দার্শনিকের

অবাধ যাতায়াত ছিল।বাদশাহ তাহার সহিত সাক্ষাৎ করার জন্য সর্বদা উদগ্রীব থাকতেন।এই দেবী ও গৌতম নামের জনৈক ব্রাক্ষ্মনের কাছ থেকে বাদশাহ মূর্তি,সূর্য,আগুন,ব্রক্ষ্মা,মহামায়া,বিষ্ঞু, কৃষ্ঞ ও মহাদেব পূজার কায়দা কানন শুনে বড়ই উৎফুল্ল হতেন এবং এইসব গ্রহনও করতেন।ইহা ছারা এই ধর্মে আগুন,পানি,গাছ,গাভী পূজা করা হত।নক্ষত্র পূজার ব্যাপারেও বাদশাহ অত্যধিক বাড়াবাড়ি করতেন।

হিন্দুদের পুনর্জন্মবাদে বিশ্বাস করাও ছিল এই ধর্মের কর্তব্য।

হির বিজয় সূরী নামক জনৈক সাধুকে বাদশাহ ‘জগৎগুরু’ উপাধি দেন।

সম্রাট আকবর হিন্দুদের পূনর্জন্মবাদে বিশ্বাস করতেন। মৃত্যুর পর তিনিও পুনরায় অন্য কোন সিংহাসনে আরোহন করবেন বলে বাদশাহ বিশ্বাস করতেন। 
ধর্মাবলম্বী কোন লোকের মৃত্যহলে তাহার গলায় কাচা গম ও পাকা ইট বাধিয়া তাহাকে পানিতে নিক্ষেপ করতে হবে এবং

যেখানে পানি পাওয়া যাইবে না সেখানে মৃতদেহ জ্বালাইয়া দিতে হবে অথবা পূর্ব দিকে মাথা ও পশ্চিম দিকে পা করিয়া দাফন করতে হবে।

একদিন আবুল ফজল বাদশাহকে একখানি কেতাব দেখাইয়া বলিলেন,”আপনার জন্য ফেরেশতা ইহা আসমান হতে এনেছেন।সেই কেতাবের একস্হানে একটি আরবি বাক্য লিখিত ছিল,যাহার অর্থ এইরূপঃ

”হে মানুষ তুমি গাভী হত্যা করিও না ।যদি কর তবে জাহান্নামে নিক্ষিপ্ত হবে।”নিরক্ষর বাদশাহ ইহা বিশ্বাস করিলেন এবং গরু জবেহ করা নিষিদ্ধ ঘোষনা করে দিলেন।কানুন জারী করলেন,কসাই এর সাথে কেউ আহার করলে তার হাত কেটে দেয়া হবে এমনকি তাহার স্ত্রীও যদি তাহার সাথে আহার করে তবে তার আঙ্গুল কাটা হবে।এই নুতন ধর্মে গরু,উট,ভেড়া প্রভৃতি জন্তুর গোশত হারাম বলিয়া ঘোষিত হল।পক্ষান্তরে বাঘ ভাল্লুকের গোশত হালালের মর্যাদা লাভ করে।মোট কথা সর্বক্ষেত্রে ইসলামের বিরোধিতা করাই ছিল দিন-ই-ইলাহির মূল উদ্দেশ্য।

একদিন সভাসদগনকে বাদশাহ ডাকিয়া বলিলেন ,”হিন্দুস্হানের জ্ঞানী ও বুদ্ধিমান যোগী ঋষীদের লিখিত হিন্দি ভাষার পুস্তক গুলি নির্ভুল জ্ঞানের উৎস।আমরা জদি এইগুলি ফার্সী ভাসায় অনুবাদ করে নেই তা হলে আমাদের ইহকাল ও পরকালে শান্তি লাভ হবে।

তৎক্ষনাৎ বাদশাহর বাসনা পুরন করবার ব্যবস্হা করা হল।অনুবাদ করার জন্য অনেক আলেম নিয়োগ করা হল এবং এর জন্য পৃথক দফতর কায়েম করা হলো।সঙ্গে সঙ্গে আরবী ভাষা পড়া ও জানা অপরাধ বলে সাব্যস্হ হলো।ইহার বদলে জ্যোতিষ শাস্ত্র,অংক,চিকিৎসা,ইতিহাস,ও কথা কাহিনী প্রভৃতি পুস্তকের প্রচলন করা হল।

ইহার পর বাদশাহ আকবর হিন্দুদের উপর হতে কয়েক কোটি টাকার জিজিয়া কর উঠিয়ে নিলেন।পূর্বে যারা ‘এলমে ফেকাহ ‘ শিক্ষা দান করতেন তাদেরকে একশত বিঘা জমি জায়গীরসরূপ দেয়া হত। বাদশাহ আকবর এই জায়গীর ছিনিয়ে লইলেন।ইসলামী আইন অনুযায়ী বিচার করার জন্য নিযুক্ত করা হত।জায়গীর প্রথা বন্দ্ধ করার ফলে ইসলামী বিচার ব্যবস্হার মূলে কুঠারাঘাত করা হল।এমনি করে ইসলামী হুকুমতের শেষ চিহ্ন টুকুও বিলুপ্ত করার জন্য বাদশাহ আকবর সর্বশক্তি নিয়োগ করলেন।ফলে কয়েক বৎসরের মধ্যে হুকুমতের কোন ক্ষেত্রেই আর ইসলামের চিহ্ন অবশিষ্ট রইল না।মসজিদ বিরান হল।মাদ্রাসা ধ্বংস হল।অধিকাংশ আলেম দেশ ত্যাগে বাধ্য হল।

শেষ পর্যন্ত বাদশাহ আকবরের রাজত্বে এমন এক শ্বাসরুদ্ধকর পরিস্হিতির সৃষ্টি হল যাতে সুন্নি মুসলমানগন অতিষ্ট হয়ে উঠলেন।কারন একমাত্র সুন্নী মুসলমানগন ব্যতিত অন্য সব সম্প্রদায়ের লোকেরা ছিল বাদশাহর প্রিয়।কাফেররা সন্মানিত হল,মোসলমানগন হলেন অপদস্হ।ইসলামী আহকাম পালন করতে গিয়ে তারা প্রতিটি ক্ষেত্রে কাফেরদের বিদ্রুপবানে জর্জরিত হতে লাগলেন।

হিন্দুরা একাদশীর দিন উপবাস থাকেন।তাই সেই দিন মোসলমানদেরকেও উপবাস করতে বাধ্য করা হত।অথচ রমজান মাসে কাফেররা অবাধে খদ্যদ্রব্য বেচাকেনা করত ও প্রকাশ্যে আহার করত।স্বয়ং বাদশাহ যাদের শায় তাদের বিরুদ্ধে শাহী অনুকম্পা পৃষ্ঠপোষকতা হতে সম্পুর্নরুপে বন্চিত মুসলমান কি-ইবা করতে পারবেন।তাহারা অন্তরে অন্তরে দগ্ধীভুত হতে লাগলেন।আল্লাহপাকের তরফ থেকে সাহায্য আসবার প্রতীক্ষায় থাকা ছারা তারা আর করনীয় কিছুই খুজে পেলেন না।একজন মোজাদ্দেদের প্রতীক্ষা করতে করতে তাহারা ধৈর্যের শেষ সীমানায় এসে পৌছলেন।

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top