logo
news image

বানেশ্বর-লালপুর-ঈশ্বরদী আঞ্চলিক মহাসড়ক উন্নয়ন প্রকল্প একনেকে অনুমোদন

ইমাম হাসান মুক্তি।।
ঈশ্বরদী-বানেশ্বর  আঞ্চলিক মহাসড়ক প্রসস্তকরণ কাজ জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদন পেয়েছে। মঙ্গলবার (১১ ফেব্রুয়ারি) একনেক সভায় এই প্রকল্পটি অনুমোদন পায়।
জানা গেছে, রাজশাহীর বানেশ্বর থেকে সারদা, চারঘাট, বাঘা ও লালপুর হয়ে ঈশ্বরদী (জেড-৬০০৬) পর্যন্ত সড়ক প্রসস্তকরণ করা হবে। জেলা মহাসড়ককে আঞ্চলিক মহাসড়কের মানে উন্নীতকরণ প্রকল্পটি পাস করা হয়েছে।
ফলে রাজশাহী, নাটোর ও পাবনা জেলাসহ এ অঞ্চলের জনসাধারণের দীর্ঘদিনের দাবি পূরণ হলো।
রাজশাহীর বানেশ্বর-সারদা-চারঘাট-নাটোরের লালপুর-পাবনার ঈশ্বরদী পর্যন্ত (জেড-৬০০৬) সড়কটি জেলা মহাসড়ক হতে আঞ্চলিক মহাসড়কের মানে ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণের মাধ্যমে রাজশাহী-নাটোর-পাবনা জেলার মধ্যবর্তী দূরত্ব হ্রাস এবং উন্নত যোগাযোগ স্থাপন কল্পে ইতোমধ্যে একনেকে অনুমোদনকৃত ৫৫৪.৩০৪৫ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প ২০২১ সালের মধ্যে বাস্তবায়ন হবে।
প্রকল্প বাস্তবায়নকারী সংস্থা সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)-এর সভায় বিবেচনার জন্য ইতোমধ্যে ‘বানেশ্বর (রাজশাহী)-সারদা-চারঘাট- লালপুর (নাটোর)- ঈশ্বরদী (পাবনা) পর্যন্ত (জেড-৬০০৬) সড়কটি জেলা সড়ককে আঞ্চলিক মহাসড়কের মানে উন্নীতকরণ’ নামে একটি প্রকল্প উপস্থাপন করা হয়েছে। মাধ্যমে রাজশাহী-নাটোর-পাবনা জেলার মধ্যবর্তী দূরত্ব হ্রাস এবং উন্নত যোগাযোগ স্থাপন কল্পে ৫৫৪.৩০৪৫ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্প ডিসেম্বর  ২০২১ সালের মধ্যে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের মাধ্যমে বাস্তবায়ন হবে। সড়ক পরিবহণ ও সেতু মন্ত্রণালয়/সড়ক পরিবহণ ও মহাসড়ক বিভাগ এ প্রকল্প গ্রহণের উদ্যোগ নেয়।
প্রকল্পের উদ্দেশ্য: বানেশ্বর (রাজশাহী)-সারদা-চারঘাট- লালপুর (নাটোর)- ঈশ্বরদী (পাবনা) পর্যন্ত (জেড-৬০০৬) সড়কটি জেলা সড়ক হতে আঞ্চলিক মহাসড়কের মানে ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণের মাধ্যমে রাজশাহী-নাটোর-পাবনা জেলার মধ্যবর্তী দূরত্ব হ্রাস এবং উন্নত যোগাযোগ স্থাপন করা।
পটভূমি: বানেশ্বর (রাজশাহী)-সারদা-চারঘাট- লালপুর (নাটোর)- ঈশ্বরদী (পাবনা) পর্যন্ত (জেড-৬০০৬) সড়কটি জেলা মহাসড়ক। এটি জাতীয় মহাসড়ক কাশিনাথপুর-দাশুরিয়া-নাটোর-রাজশাহী-সোনামসজিদ বর্ডার (এন-০৬) সড়কের ১২১তম কিলো মিটারে বানেশ্বর নামক বাজার হতে শুরু করে চারঘাট, বাঘা ও লালপুর উপজেলা হয়ে পাবনা জেলার সাথে মিলিত হয়েছে। সড়কটির মোট দৈর্ঘ্য ৫৪.৯১ কিলো মিটার। সড়কটি তিনটি জেলার সংযোগকারী সড়ক বিধায় আঞ্চলিক মহাসড়কে রূপান্তরের একটি প্রস্তাব ইতোমধ্যে দাখিল করা হয়েছে। দীর্ঘ দিন ধরে সড়কটি সোনামসজিদ স্থল বন্দর হতে নাটোর/পাবনার পণ্য পরিবহণের প্রধান করিডর হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। ভারী যানবাহন চলাচল করার কারণে রাস্তাটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সড়কটির পাশে রয়েছে বাংলাদেশের একমাত্র পুলিশ প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ‘বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমি’, ‘রাজশাহী ক্যাডেট কলেজসহ বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও সরকারি অফিস। বানেশ্বর থেকে চারঘাট পর্যন্ত সড়কটির দুই পার্শ্বে ২৭টি অটো ডাউল মিল, ৯টি রাইস মিল গড়ে উঠেছে। চারঘাট উপজেলা সদরের পাশেই রয়েছে রাজশাহীর বৃহত্তম মোক্তারপুর বালুঘাট। এই সড়ক দিয়ে প্রতিদিন শতাধিক বালু ভর্তি ট্রাক চলাচল করে। প্রস্তাবিত সড়কটির পাবনা ও নাটোরের কিছু অংশ মজবুতিকরণ করা হলেও রাজশাহী অংশটুকুর সংস্কার মেরামত না করায় পণ্যবাহী ভারী যানবাহন চলাচলের ফলে সড়কটি দ্রুত নষ্ট হয়ে পড়েছে। এ প্রেক্ষিতে ৫৪.৯১ কিলো মিটার মহাসড়ককে আঞ্চলিক মহাসড়ক মানে ও প্রশস্থতায় উন্নীতকরণের লক্ষে সড়ক পরিবহণ ও মহাসড়ক বিভাগ হতে সম্পূর্ণ জিওবি অর্থায়নে মোট ৩৬৪.৫২৮৯ কোটি টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে জুলাই ২০১৯ হতে ডিসেম্বর ২০২১ মেয়াদে বাস্তবায়নের জন্য আলোচ্য প্রকল্প প্রস্তাব প্রণয়ন করা হয়। প্রস্তাবিত প্রকল্পটির ওপর ৪ আগস্ট ২০১৯ পিইসি সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভার সিদ্ধান্তের আলোকে ডিপিপি পুনর্গঠন করা হয়েছে। পুনর্গঠিত ডিপিপি অনুযায়ী প্রকল্পটির প্রাক্কলিত ব্যয় ৫৫৪.৩০৪৫ কোটি টাকা এবং বাস্তবায়ন মেয়াদকাল অক্টোবর ২০১৯ হতে ডিসেম্বর ২০২১ পর্যন্ত।
প্রকল্পের প্রধান প্রধান কার্যক্রম:
সড়ক বাঁধ প্রশস্তকরণ (মাটির কাজ)-৪৫১৮৮২.৯৮ ঘ.মি; পেভমেন্ট পুন:নির্মাণ-১০.৭০ কি.মি.; বিদ্যমান পেভমেন্ট মজবুতিকরণ (৫.৫০ মি. প্রস্থ)- ২৩.৯১ কি.মি.; বিদ্যমান পেভমেন্ট মজবুতিকরণ (৫.৫০ মি. প্রস্থ*২.০০)-১.৫০ কি.মি.; বিদ্যমান পেভমেন্ট মজবুতিকরণ (৫.৫০ মি. হতে ৭.৩০ মি. প্রস্থে)-৩৮.৮১ কি.মি.; বিদ্যমান পেভমেন্ট মজবুতিকরণ (৫.৫০ মি. হতে ৭.৩০ মি. প্রস্থে)-১.৫০ কি.মি.; হার্ড সোল্ডার নির্মাণ-৪৯.৫১ কি.মি.; সার্ফেসিং (ডিবিএস বাইন্ডার ও ওয়্যারিং-৭.৩০ মি. প্রস্থে)-৪৯.৫১ কি.মি.; সার্ফেসিং (ডিবিএস ৭.৩০ প্রস্থে*২.০০)-১.৫০ কি.মি.; ইন্টারসেকশন-৩.০০ সংখ্যা; রিজিড পেভমেন্ট (হার্ড সোল্ডার)-১.৩০ কি.মি.; রিজিড পেভমেন্ট-২.৬০ কি.মি.; বাস- বে-১৮টি; আরসিসি বক্স কালভার্ট নির্মাণ (৩৬টি)-১৪৭.০০ মি.; এক্সটেনশন আরসিসি বক্স কালভার্ট নির্মাণ (১৩টি); আরসিসি ইউ- ড্রেন নির্মাণ-২৫৮০০.০০ মি.; কংক্রিট স্লোপ প্রটেকশনসহ জিও- টেক্সটাইল- ৬৮০০.০০ ব.মি.; আরসিসি প্যালাসাইডিং-৫০০০.০০ মি.; কনক্রিট টো-ওয়াল-২৮৩৫.০০ মি., সাইন, সিগন্যাল, কি.মি. পোস্ট, রোড মার্কিংসহ ইত্যাদি কাজ সম্পন্ন করা হবে।
পরিকল্পনা কমিশনের সুপারিশ: ক) প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে রাজশাহী জেলার পুঠিয়া, চারঘাট ও বাঘা উপজেলা এবং নাটোর জেলার লালপুর উপজেলা ও পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নসহ প্রকল্প এলাকার জনগণের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন হবে।
খ) সড়ক পরিবহণ ও মহাসড়ক বিভাগ কর্তৃক প্রস্তাবিক ‘বানেশ্বর (রাজশাহী)-সারদা-চারঘাট- লালপুর (নাটোর)- ঈশ্বরদী (পাবনা) পর্যন্ত (জেড-৬০০৬) সড়কটি জেলা সড়ককে আঞ্চলিক মহাসড়কের মানে উন্নীতকরণ’ শীর্ষক প্রকল্পটি সম্পূর্ণ জিওবি অর্থায়নে মোট ৫৫৪.৩০৪৫ কোটি টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে অক্টোবর ২০১৯ হতে ডিসেম্বর ২০২১ মেয়াদে বাস্তবায়নের জন্য একনেকের সদয় বিবেচনা ও সানুগ্রহ অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করেন ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য শামীমা নার্গিস।
৫৮ নাটোর-১ (লালপুর-বাগাতিপাড়া) আসনের সংসদ সদস্য শহিদুল ইসলাম বকুল বলেন, ‘বানেশ্বর (রাজশাহী)-সারদা-চারঘাট- লালপুর (নাটোর)- ঈশ্বরদী (পাবনা) পর্যন্ত (জেড-৬০০৬) সড়কটি জেলা সড়ককে আঞ্চলিক মহাসড়কের মানে উন্নীতকরণ’ প্রকল্পটির বাস্তবায়ন হবে আমার এক বছরের সবচেয়ে বড় সাফল্য। আমার নির্বাচনী এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নসহ প্রকল্প এলাকার জনগণের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নের কথা ভেবে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা প্রকল্পটি গ্রহণ করায় লালপুর-বাগাতিপাড়ার জনগণের পক্ষ থেকে গভীর কৃতজ্ঞতা ও অভিনন্দন জানাই।’

সাম্প্রতিক মন্তব্য