logo
news image

পর পারে আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা।  ।  
বরেণ্য গীতিকার, সুরকার ও সংগীত পরিচালক এবং মুক্তিযোদ্ধা আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল আর নেই (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।
মঙ্গলবার (২২ জানুয়ারি) রাজধানীর আফতাবনগরের বাসায় হার্ট আ্যাটাক হলে তাকে আয়েশা ইউনিভার্সেল মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে সকাল সোয়া ৬টায় চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
হাসপাতালে ডাক্তার জানান, তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।
মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর। ১৯৫৬ সালের ১ জানুয়ারি আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। ছোটবেলা থেকেই তিনি সংগীত চর্চা শুরু করেন। ১৫ বছর বয়সে ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেন।
সস্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুস জানান, আগামীকাল বুধবার সকাল ১১টায় সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা জ্ঞাপনের লক্ষ্যে প্রয়াত বুলবুলের মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে রাখা হবে। সেখানে দুপুর সাড়ে বারটা পর্যন্ত শ্রদ্ধা জানানো শেষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদে জোহর নামাজের পর তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। তার পরিবারের পক্ষ থেকে দাফনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে তিনি জানান।
তার মৃত্যুতে পৃথকভাবে শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরিন শারমিন চৌধুরী।
১৯৫৬ সালের ১ জানুয়ারি জন্ম নেওয়া আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল বাংলাদেশের একজন সঙ্গীত ব্যক্তিত্ব। তিনি একাধারে গীতিকার, সুরকার এবং সঙ্গীত পরিচালক।একাত্তরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশ নেন মাত্র ১৫ বছর বয়সে। দেশের প্রতি তার ভালোবাসার প্রকাশ ঘটে মানুষের মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়া বহু দেশাত্মবোধক গানে। ১৯৭০ দশকের শেষ লগ্ন থেকে অমৃত্যু বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পসহ সঙ্গীত শিল্পে সক্রিয় ছিলেন। তিনি রাষ্ট্রীয় সর্বোচ্চ সম্মান একুশে পদক, জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার এবং রাষ্ট্রপতির পুরস্কার-সহ অন্যান্য অসংখ্য পুরস্কারে ভূষিত হন।
আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল ১৯৭৮ সালে মেঘ বিজলি বাদল ছবিতে সঙ্গীত পরিচালনার মাধ্যমে চলচ্চিত্রে কাজ শুরু করেন। তিনি স্বাধীনভাবে গানের অ্যালবাম তৈরি করেছেন এবং অসংখ্য চলচ্চিত্রের সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন। সাবিনা ইয়াসমিন, রুনা লায়লা, সৈয়দ আব্দুল হাদি, এন্ড্রু কিশোর, সামিনা চৌধুরী, খালিদ হাসান মিলু, আগুন, কনক চাঁপা-সহ বাংলাদেশী প্রায় সকল জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পীদের নিয়ে কাজ করেছেন তিনি। তিনি নিয়মিত গান করেন ১৯৭৬ সাল থেকে।
আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল তিন শতাধিক চলচ্চিত্রের সঙ্গীত পরিচালনা করেন। চলচ্চিত্রের সঙ্গীত পরিচালনা করে দুই বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার, এগারো বার বাচসাস পুরস্কার সহ বিভিন্ন পুরস্কার পান। নিচে বুলবুলের সঙ্গীত পরিচালনায় উল্লেখযোগ্য কিছু চলচ্চিত্রের নাম দেয়া হলো, যা আজও শ্রোতামহলে বেশ জনপ্রিয়।
'সব কটা জানালা খুলে দাও না' ইতিহাস হয়ে থাকবে স্মৃতির পাতায়।
'মাঝি নাও ছাইড়া দে ও মাঝি পাল উড়াইয়া দে', 'সেই রেললাইনের ধারে, সুন্দর সুবর্ণ তারুণ্য লাবণ্য', 'ও আমার আট কোটি ফুল দেখ গো মালি', 'মাগো আর তোমাকে ঘুম পাড়ানি মাসি হতে দেব না', 'একতারা লাগে না আমার দোতারাও লাগে না', 'আমার সারা দেহ খেয়ো গো মাটি', 'আমার বুকের মধ্যেখানে', 'আমার বাবার মুখে প্রথম যেদিন', 'আমি তোমারি প্রেমও ভিখারি', 'ও আমার মন কান্দে, ও আমার প্রাণ কান্দে', 'আইলো দারুণ ফাগুনরে', 'আমার একদিকে পৃথিবী একদিকে ভালোবাসা', আমি তোমার দুটি চোখে দুটি তারা হয়ে থাকব', 'আমার গরুর গাড়িতে বউ সাজিয়ে', 'পৃথিবীর যত সুখ আমি তোমারই ছোঁয়াতে যেন পেয়েছি', 'তোমায় দেখলে মনে হয়, হাজার বছর আগেও বুঝি ছিল পরিচয়', 'কত মানুষ ভবের বাজারে', 'তুই ছাড়া কে আছে আমার জগৎ সংসারে', 'বাজারে যাচাই করে দেখিনি তো দাম', 'আম্মাজান আম্মাজান', 'স্বামী আর স্ত্রী বানায় যে জন মিস্ত্রি', 'আমার জানের জান আমার আব্বাজান', 'ঈশ্বর আল্লাহ বিধাতা জানে', 'এই বুকে বইছে যমুনা', 'সাগরের মতোই গভীর', 'আকাশের মতোই অসীম', 'প্রেম কখনো মধুর, কখনো সে বেদনাবিধুর', 'আমার সুখেরও কলসী ভাইঙা গেছে লাগবে না আর জোড়া', 'পৃথিবীর জন্ম যেদিন থেকে, তোমার আমার প্রেম সেদিন থেকে'।
এ ছাড়া রয়েছে- 'পড়ে না চোখের পলক', 'যে প্রেম স্বর্গ থেকে এসে', 'প্রাণের চেয়ে প্রিয়', 'কী আমার পরিচয়', 'অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে', 'তুমি আমার জীবন, আমি তোমার জীবন', 'তোমার আমার প্রেম এক জনমের নয়', 'তুমি হাজার ফুলের মাঝে একটি গোলাপ, জীবনে বসন্ত এসেছে', 'ফুলে ফুলে ভরে গেছে মন, ঘুমিয়ে থাকো গো সজনী আমার হৃদয় একটা আয়না', 'ফুল নেব না অশ্রু নেব', 'বিধি তুমি বলে দাও আমি কার', 'তুমি মোর জীবনের ভাবনা, হৃদয়ে সুখের দোলা', 'তুমি আমার এমনই একজন', 'যারে এক জনমে ভালোবেসে ভরবে না এ মন'।
আরও রয়েছে- 'উত্তরে ভয়ঙ্কর জঙ্গল দক্ষিণে না যাওয়াই মঙ্গল', 'কোন ডালে পাখিরে তুই বাঁধবী আবার বাসা', 'একাত্তুরের মা জননী কোথায় তোমার মুক্তিসেনার দল', 'বিদ্যালয় মোদের বিদ্যালয় এখানে সভ্যতারই ফুল ফোটানো হয়', 'আমায় অনেক বড় ডিগ্রি দিছে', 'এই জগৎ সংসারে তুমি এমনই একজন', 'জীবন ফুরিয়ে যাবে ভালোবাসা ফুরাবে না জীবনে', 'পৃথিবী তো দুদিনেরই বাসা, দুদিনেই ভাঙে খেলাঘর', 'অনেক সাধনার পরে আমি পেলাম তোমার মন', 'ওগো সাথী আমার তুমি কেন চলে যাও', 'তুমি সুতোয় বেঁধেছ শাপলার ফুল নাকি তোমার মন', 'একদিন দুইদিন তিন দিন পর, তোমারি ঘর হবে আমারি ঘর', কী কথা যে লিখি, কি নামে যে ডাকি'। 'নদী চায় চলতে, তারা যায় জ্বলতে', 'চতুর্দোলায় ঘুমিয়ে আমি ঘুমন্ত এক শিশু', 'চোখের ভেতর কল বসাইছে', 'আমার জীবন নায়ে বন্ধু তুমি প্রাণের মাঝি', 'তুমি স্বপ্ন তুমি সাধনা', 'নদী চায় চলতে, তারা যায় জ্বলতে', 'আকাশটা নীল মেঘগুলো সাদা সাদা', আমার তুমি ছাড়া কেউ নেই আর', 'শেষ ঠিকানায় পৌঁছে দিয়ে আবার কেন পিছু ডাকো', 'চিঠি লিখেছে বউ আমার', 'মাগো আর নয় চুপি চুপি আসাসহ আরও অনেক গান।
প্রেমের তাজমহল সিনেমার জন্য তিনি ২০০১ সালে এবং হাজার বছর ধরে সিনেমার জন্য ২০০৫ সালে শ্রেষ্ঠ সংগীত পরিচালকের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান।
দেশের সংগীত অঙ্গনে অবদানের জন্য ২০১০ সালে আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলকে একুশে পদকে ভূষিত করে সরকার।

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top