logo
news image

নাটোরে পরিবেশবান্ধব ইট তৈরী

প্রাপ্তি প্রসঙ্গ ডেস্ক।  ।  
নাটোরে বেসরকারী পর্যায়ে তৈরী হচ্ছে পরিবেশ বান্ধব ইট। বালি, সিমেন্ট দিয়ে তৈরী হওয়ায় এতে ক্ষতি হচ্ছে না পরিবেশের। তবে সরকারী স্থাপনা সহ বিভিন্ন কাজে পরিবেশ বান্ধব ইট ব্যবহারে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের নির্দেশনা থাকলেও তা মানছেনা ক্ষোদ সরকারী দপ্তরের কর্মকর্তারা। তবে অবকাঠামোতে এই ধরনের ইট ব্যবহার করা হলে কৃষি জমি রক্ষার পাশাপাশি পরিবেশ রক্ষা পাবে বলে ধারনা সংশ্লিষ্টদের।
দেশে যে পরিমান বায়ু দুষণ হয় তার জন্য ৫৮শতাংশ দায়ী করা ইটভাটাকে। পোড়া মাটির ইটভাটা আশপাশের পরিবেশের পাশাপাশি ফল বাগান নষ্ট করে চলছে প্রতিবছর। সে সাথে সাধারণ মানুষ পড়ছে মারাত্বক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে।
এই অবস্থায় উত্তরাঞ্চলের প্রথম, নাটোর জেলায় বেসরকারী ভাবে তৈরী হচ্ছে পরিবেশ বান্ধব ইট। প্রতিদিন ৩হাজার ইট তৈরী করতে সক্ষম নাটোর শহরতলীর দিঘাপতিয়া এলাকায় স্থাপিত মামুন ইকো ব্রিকস নামের এই প্রতিষ্ঠানটি।
সূত্র জানায়, চলতি বছরের শুরুর দিকে শহরতলীর দিঘাপতিয়া এলাকায় উত্তরাঞ্চলের প্রথম নাটোরে পরিবেশবান্ধব ইট তৈরীর মেশিন স্থাপন করা হয়। চীন থেকে আনা ইট প্রস্তুতকারী মেশিনটি দিনে ৩হাজার ইট তৈরী করতে পারে। এছাড়া যে কোন রঙ দিয়ে কালার ইট তৈরী করা যায়। এই ইট ব্যবহারের কারণে সিমেন্ট, বালি,নির্মাণ শ্রমিক কম এবং দ্রæত সময়ের মধ্যে বাড়ি নির্মাণ করা সম্ভব।
মামুন ইকো ব্রিকসের স্বত্ত্বাধিকারী মামুন ভুঁইয়া বলেন,নাটোরে প্রচুর পরিমানে পোড়া মাটির ইট প্রস্তুত করা হয়। এখানকার মাটি ভাল হওয়ায় আশপাশের রাজশাহী,বগুড়া জেলায় ইট সরবরাহ করে ভাটা মালিকরা। এতে করে প্রচুর পরিমানে কৃষি জমি নষ্ট করে মাটি সংগ্রহ করে তারা। এই অবস্থায় পরিবেশ রক্ষার জন্য ২০১৮সালের শুরুর দিকে পরিবেশ বান্ধব ইট তৈরীর মেশিন নিয়ে আসি আমি। মানুষের মধ্যে এই ইট সম্পর্কে ভাল ধারনা না থাকায় চাহিদা সে ভাবে তৈরী হয়নি।
পোড়মাটির ইট তৈরী করতে গিয়ে প্রতিবছরই কমছে আবাদি জমির পরিমান। অথচ এই ইট তৈরীতে ব্যবহার হচ্ছে সিমেন্ট, বালু এবং পাথরের ডাষ্ট।এছাড়া ইট প্রস্তুত করতে গিয়ে অনেক সময় স্বাস্থ্য ঝুকিতেঁ পড়তে হয় এর সাথে জড়িত শ্রমিকদের। কিন্তু কম পরিশ্রম এবং স্বাস্থ্য ঝুকি না থাকায় সহজেই কাজ করতে পারছে শ্রমিকরা।
মামুন ইকো ব্রিকস কারখানার শ্রমিক জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, পোড়া মাটির ইট ভাটায় কাজ করতে গেলে অনেক পরিশ্রম করতে হয়। কিন্তু পরিবেশ বান্ধব ইট কারখানায় সে তুলনায় পরিশ্রম কম। তাছাড়া ভাটার ধোঁয়ায় অনেক সময় স্বাস্থ্যর ক্ষতি হয়, কিন্তু এখানে সে রকম নাই।
আরেক শ্রমিক রাজু আহমেদ বলেন,এই ইট কারখানা আশ-পাশের পরিবেশ নষ্ট করে না। বাড়ির কাছে হওয়ার কারনে সহজেই কাজ করতে পারি।
তিনি বলেন, পোড়ামাটির ইটের চেয়ে খুব কম ইট দিয়েই বাড়ি বানাতে তিনি। সিমেন্ট, বালি,নির্মাণ শ্রমিক এবং দ্রæত সময়ের মধ্যে বাড়ি নির্মাণ করা সম্ভব। পোড়া মাটির ইটের চেয়ে পরিবেশ বান্ধব ইটের চাহিদাও বাড়ছে দিন দিন।
এদিকে, পরিবেশ দুষন রোধে সরকারী অবকাঠামোতে পরিবেশ বান্ধব ইট ব্যবহার করার জন্য প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় থেকে একটি নির্দেশনা জারি করা হয় চলতি বছরের জানুয়ারী মাসে। তবে সে নির্দেশনা মাঠ পর্যায়ের সরকারী কর্মকর্তারা মানছে না বলে অভিযোগ রয়েছে।
মামুন ইকো ব্রিকস এর সত্ত্বাধিকারীর মামুন ভুঁইয়া বলেন, চলতি বছরের ১৪জানুয়ারী প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের পরিচালক-৬ শামীম আহমেদ সাক্ষরিত একটি চিঠি দেশের সকল সরকারী দপ্তরে পাঠানো হয়েছে। সে চিঠিতে সরকারি নির্মাণ কাজে বিকল্প ইট (ফাঁপা ইট) ব্যবহারের জন্য বলা হয়েছে।
চিঠিতে আরো বলা হয়েছে, হাউজ বিল্ডিং রিচার্স ইন্সটিটিউট কর্তৃক উদ্ভাবিত বিকল্প ইট ব্যবহারের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, বিভাগ এবং সংস্থা কি ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছে তা আগামী ৪সপ্তাহের মধ্যে জানানোর জন্য বলা হয়। কিন্তু আজ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সে নির্দেশনা মানছে না সরকারী দপ্তরগুলো।
নাটোর সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা জেসমিন আক্তার বানু বলেন, ইকো ইট ব্যবহারের জন্য সরকারী নির্দেশনা রয়েছে। কিন্তু সরকার সিডিউলে যে দাম নির্ধারণ করে তার চেয়ে বেশি দাম পড়ে যাচ্ছে পরিবেশ বান্ধব ইট ব্যবহারে। এই জন্য পরিবেশ বান্ধব ইট ব্যবহার করা সম্ভব হচ্ছে না। আগামী দিনে যে কোন প্রকল্পতে পরিবেশ বান্ধব ইট যাতে ব্যবহার করা যায় সেজন্য ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
নাটোর গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জাহেদুল ইসলাম বলেন, ইকো ইট ব্যবহারের জন্য সরকারী নির্দেশনা রয়েছে। সে নির্দেশনা বাস্তবায়নের জন্য আমারা পরিবেশ বান্ধব ইট সরকারী অবকাঠামোতে অর্ন্তভুক্তির জন্য চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Top