logo
news image

সিলেটে চালু হচ্ছে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্র

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট।  ।  
সিলেট জেলার টিলাগড় ইকোপার্কে দুই বছর আগে নির্মিত ‘বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্র’ অবশেষে চালু হচ্ছে। প্রায় ৭ কোটি টাকা ব্যয়ে ১১২ একর জায়গায় এটি নির্মাণ করেছে বন বিভাগ। ৩০ অক্টোবর কেন্দ্রটি উদ্বোধনের কথা রয়েছে।
এরই মধ্য দিয়ে সিলেটবাসীর দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা পূরণ হতে যাচ্ছে। ফলে সিলেটের সর্বসাধারণ এবং আগত পর্যটকদের বিনোদনের সুযোগ প্রসারিত হবে। পুনর্বাসনসহ সিলেটের বন্যপ্রাণীর সুচিকিৎসাও নিশ্চিত হবে।
প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দর্শনার্থীদের জন্য খোলা রাখা হবে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্রটি। প্রবেশ মূল্য শিশুদের জন্য ৫টাকা, স্কুল শিক্ষার্থীদের জন্য ২টাকা এবং প্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য ১০টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।
বন বিভাগ জানিয়েছে, প্রাথমিক পর্যায়ে দর্শনার্থীদের জন্য জেব্রা, ময়ূর, ঘোড়া, গোল্ডেন ঈগল, সিলভার ঈগল, হরিণসহ নানা জাতের পশু-পাখি রাখা হবে।
সিলেটের উপ-বন সংরক্ষক মো. মনিরুল ইসলাম জানিয়েছেন, এরই মধ্যে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্রটি প্রস্তুত করা হয়েছে। পশু-পাখি সিলেটে নিয়ে যেতে বন বিভাগের অভিজ্ঞ তিনজন কর্মকর্তাকে ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। বিশেষজ্ঞ কর্মকর্তাদের পরামর্শ ও দিকনির্দেশনায় এক সপ্তাহের মধ্যে এগুলো সিলেটে পৌঁছে যাবে।
পর্যাপ্ত নিজস্ব জনবল না থাকায় ইজারার মাধ্যমে এটি রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব ‘তানহা এন্টারপ্রাইজ’ নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে দেওয়া হয়েছে। ৫ লাখ ৫০ হাজার টাকা ইজারা মূল্যে এক বছরের জন্য এ প্রতিষ্ঠানকে রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
বন কর্মকর্তা বলেন, চিকিৎসকসহ ২৭জন দক্ষ কর্মীর প্রয়োজন হলেও ইকোপার্কের ১জন কর্মকর্তা ও ৪জন নিরাপত্তাকর্মী রয়েছে। এ কারণে দরপত্র আহ্বান করে ইজারার মাধ্যমে এটি চালু করা হচ্ছে। নিরাপত্তা ও পরিচালনার বিষয়টি ইজারাপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান দেখবে। সার্বিক দায়িত্বে থাকবে বন বিভাগ।
বন কর্মকর্তা আরও জানান, আগামী ৩০ অক্টোবর বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্র চালু হওয়ার কথা রয়েছে। তবে, নিজস্ব ডাক্তার নিয়োগ না হওয়া পর্যন্ত বাঘ, ভল্লুক, সিংহ- এসব প্রাণী এখানে রাখা হবে না।
ইকোপার্ক এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, প্রাণী রাখার জন্য নির্মিত খাঁচা, শেড ও বেষ্টনিগুলো রঙ করার কাজে ব্যস্ত বন বিভাগের কর্মচারিরা। প্রধান ফটকেও লেগেছে রঙের আঁচড়। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজে নিয়োজিত বেশ কয়েকজন শ্রমিক। বনের একজন নিরাপত্তাকর্মী বলেন, উর্ধ্বতন কর্মকর্তার নির্দেশে পরিচ্ছন্নতা ও রঙের কাজ শুরু করেছেন। দুই সপ্তাহ ধরে এ কাজ চলছে। এখন প্রায় শেষ পর্যায়ে।
টিলাগড় ইকোপার্কের মধ্যে রয়েছে একটি রেস্টুরেন্ট। আগত দর্শনার্থীদের খাবারের ব্যবস্থা নিশ্চিত করার জন্য রেস্টুরেন্টটি মাত্র ৫৫হাজার টাকা মূল্যে এটিও একবছরের জন্য ইজারা দেওয়া হয়েছে। আছে গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা।
ইজারাপ্রাপ্ত তানহা এন্টারপ্রাইজের স্বত্ত্বাধিকারী সুবেদুর রহমান মুন্না জানান, বন বিভাগ সবকিছু প্রস্তুত করে দিচ্ছে। চিড়িয়াখানার রক্ষণাবেক্ষণ, প্রতিটি খাঁচা ও প্রাণীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং দর্শনার্থীদের জন্য পশু-পাখি দেখার সুযোগ করে দেওয়ার সার্বিক দায়িত্ব আমাদের। আমরা পর্যাপ্ত দক্ষ লোকবল নিয়োগ করে এটা নিশ্চিত করবো।
সিলেট বন বিভাগের টিলাগড় বিট কর্মকর্তা চয়নব্রত চৌধুরী জানান, প্রতিদিন প্রচুর পর্যটক এখানে আসে। খুব শিগগীর বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্রটি চালু হবে। এটি চালু হলে দর্শনার্থী আগমণ কয়েকগুণ বেড়ে যাবে।
সিলেট ইকোপার্কের পাশেই সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বলছেন, সিলেট বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্র চালু হলে স্থানীয় লোকজনসহ দেশ-বিদেশের অসংখ্য পর্যটক আসবে। তাই, নিরাপত্তার বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখা উচিত।
বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণি অধিকার সংরক্ষণ বিষয়ক সংগঠন প্রাধিকার’র সাবেক সভাপতি মনজুর কাদের বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় ও আশপাশ এলাকায় সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক পরিবেশ বিরাজমান। ইকোপার্কটি এমনিতেই প্রকৃতিপ্রেমী মানুষের প্রিয় একটি জায়গা। এর মধ্যে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্র চালু হওয়ায় এ স্থানের গুরুত্ব আরো বেড়ে যাবে। তবে, আগত দর্শনার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।
এ ব্যাপারে পরিবেশবাদি সংগঠন ‘ভূমিসন্তান বাংলাদেশ’ এর প্রধান সমন্বয়ক আশরাফুল কবির বলেন, সিলেটে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্র নির্মাণের উদ্যোগ প্রশংসার দাবিদার। তবে, প্রাণীদের চিকিৎসার জন্য এখানে একটি চিকিৎসাকেন্দ্র ও পর্যাপ্ত প্রাণী চিকিৎসক নিয়োগ দেওয়া জরুরি। মাংসাশী প্রাণী হোক আর সাধারণ প্রাণী হোক সবার সুচিকিৎসা নিশ্চিতের ব্যবস্থা নিয়েই বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্রটি চালু করা প্রয়োজন।
এ ব্যাপারে বন কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম বলেন, টিলাগড় ইকোপার্কে প্রাণী চিকিৎসা কেন্দ্র রয়েছে। তবে, নিজস্ব চিকিৎসক না থাকায় সেটি চালু করা যাচ্ছে না। তিনি আরও বলেন, সিলেটে যেসব বন্যপ্রাণীর চিকিৎসা প্রয়োজন হবে তা বনবিভাগ ব্যবস্থা করবে। আপাতত আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে অর্থাৎ প্রয়োজন হলে বাইরের চিকিৎসক ডেকে চিকিৎসার ব্যবস্থা নেওয়া হবে এবং টিলাগড় ইকোপার্কেই চিকিৎসা শেষে এখানে পুনর্বাসন করা হবে। যে কারণে আমরা বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্র বলছি।
তিনি বলেন, আমরা এখন শুরু করতে যাচ্ছি। দিনদিন আরো সমৃদ্ধ হবে বন্যপ্রাণী কেন্দ্রটি। নিজস্ব লোকবল পেলে ইজারা প্রথা বাতিল করে আমরা নিজেদের মতো করে কাজ করবে। জিরাফসহ নানা ধরণের প্রাণী এখানে নিয়ে আসার পরিকল্পনা আমাদের রয়েছে।
বন বিভাগ জানিয়েছে, বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ কেন্দ্রের জন্য প্রায় ৮০ লাখ টাকা ব্যয়ে বিদেশ থেকে বেশ কিছু প্রাণী কেনা হয়েছে। এগুলো গাজীপুরে সাফারি পার্কে রাখা আছে। পর্যায়ক্রমে প্রাণীগুলো সিলেট স্থানান্তর হবে। ভল্লুক ও হরিণ কেনা হয়নি। সাফারি পার্ক থেকে এসব প্রাণী নিয়ে আসা হবে। স্থানীয়ভাবে সংগ্রহ করে বানর ও অজগর পার্কে রাখার ব্যবস্থা করবে বনবিভাগ।
বন্যপ্রাণী রাখার জন্য ইকোপার্কে নির্মাণ করা হয়েছে প্রায় ১১টি বেষ্টনি, শেড ও খাঁচা। জেব্রা, হরিণ, বাঘ, সিংহের বিচরণের জন্য বেষ্টনির পাশাপাশি বিশ্রামের জন্য শেড তৈরি করা হয়েছে। প্রয়োজনমতো আরও খাঁজা-শেড তৈরির কথা জানান বন কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম।
জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ ও সিলেটবাসীর বিনোদনের সুবিধার জন্য গড়ে তোলা হয় টিলাগড় ইকোপার্ক। এরপর অর্থমন্ত্রীর বিশেষ আগ্রহে ২০১২ সালে সেখানে একটি চিড়িয়াখানা নির্মাণের সিদ্ধান্ত হয়। বাস্তবায়নে ৯ কোটি ৯৯ লাখ ৯৬ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। কিন্তু প্রায় ৭ কোটি টাকা খরচ করে ৩ কোটি টাকা অর্থ মন্ত্রণালয়ে ফেরত দেয় বন বিভাগ। টিলাগড় ইকোপার্কে প্রায় ৫০ প্রজাতির বনজ, ফলদ ও ওষুধি গাছ রয়েছে। এছাড়া প্রায় ৩০ প্রজাতির প্রাণীর বিচরণ রয়েছে এ বনে।

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য

Blog single photo
July 16, 2019

Leshefs

Amoxicillin Advil Interaction cialis Propecia Precio Biologia Looking For Viagra

(0) Reply
Blog single photo
June 6, 2019

Leshefs

Fa Male Finasteride Propecia Propecia Es Bueno cialis 5 mg best price usa Amoxicillin Clavulanate Aka Augmentin 250m Mejor Cialis Levitra

(0) Reply
Blog single photo
June 19, 2019

Leshefs

Kamagra 5mg Oral Jelly Buy Cialis Japan cialis 20mg price at walmart Why No Generic Viagra Site Pour Acheter Kamagra Cialis E Cecita

(0) Reply
Blog single photo
July 4, 2019

Leshefs

Synthroid buy viagra online Generic Amoxil Oral Drops

(0) Reply
Top