logo
news image

বড়াইগ্রামে রোগ যন্ত্রনায় আত্তহত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক, বড়াইগ্রাম নাটোর

নাটোরের বড়াইগ্রামে রোগ যন্ত্রনায় আত্তহত্যার করেছে এক গৃহবধু। গতকাল শুক্রবার উপজেলার ফুলবতী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। ঐ গৃহবধু উপজেলার ফুলবতী গ্রামের মোক্তার হোসেন এর স্ত্রী শিরিনা বেগম (৩৫) এবং পার্শবতী গুরুদাসপুর উপজেলার ধারাবাড়িষা গ্রামের শের মাহমুদ এর মেয়ে।
স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, প্রায় ১৫ বছর আগে মোক্তার হোসেন ও শিরিনা বেগমের পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। তাদের শিহাব ( ১২) ও মদিনা (৭) বছরের সন্তান রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে শিরিনা বেগম ডায়বেটিক্স, মানসিক রোগসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন। তারা সারা শরীরে ঘাঁ পচরা দেখা দিয়েছে। স্বামী চিকিৎষা করাতে গিয়ে জমিজমা বিক্রি করে  সর্বসান্ত হয়েছেন।
গতকাল রাতে স্বামী , সন্তান , এবং বোনকে নিয়ে বাড়িতে ছিলেন। মাথার যন্তনার কারনে সারারাত ঘুমায়নি শিরিনা বেগম। স্বামী এবং বোন পাশে বসে ছিলেন। ভোর ৫ ঘটিকার দিকে বোন ঘুমিয়ে পরলে বারান্দার বাঁশের তিরের সাথে ঐড়নায় ফাঁসি দিয়ে আত্তহত্যা করে।
বোন হাসি বেগম বলেন, রাতে আমি আপা একত্রে ছিলাম। দুলাভাই রাত ৩ ঘটিকার দিকে ঘুমিয়ে যায়। আমাকে ৫ ঘটিকার দিকে আপা ঘুমাতে বলে। আমি ঘুমিয়ে পরলে আপা বারান্দায় টিনের সাথে আত্তহত্যা করে।
শিহাব হোসেন বলেন, আমার মা দীর্ঘ দিন অসুস্থ ছিল। আমার মায়ের সাথে বাবার কখন কথা কাটাকাটি হতে দেখি নাই। আমা খালা চিৎকারে জানতে পারি আমার মা আত্তহত্যা করেছে।
বড়াইগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দিলিপ কুমার দাস বলেন, পারিবারিক ভাবে আপত্তি না থাকায় দাফন করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।
সম্পাদনায়-মঅাকস

কমেন্ট করুন

...

সাম্প্রতিক মন্তব্য